ভয়াবহ বন্যা ও নদী ভাঙ্গনের কবলে কুড়িগ্রাম জেলা

  • 27 June
  • 10:48 PM

মোঃ তাসনিমুল হাসান রাহাত শিক্ষার্থী, আইন বিভাগ, জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয় 27 June, 22

প্রতিবছর প্রকৃতিক দুর্যোগ বন্যা আর নদী ভাঙন দেখা দেয় দেশের সবচেয়ে দরিদ্র কুড়িগ্রাম জেলায়। তখনই নড়ে চড়ে বসে প্রশাসন থেকে শুরু করে সংশ্লিষ্ট মন্ত্রণালয়গুলো। কিন্তু সারা বছর চুপচাপই থেকে যায় সংশ্লিষ্টরা। এমনই প্রশ্ন কেনো নদী পাড়ের মানুষের কেনো তারা সারাবছর চুপচাপ থাকেন। কেনো নেন না স্থায়ী সমাধান?

নদী ভাঙনে নিঃস্ব হয়ে পরে নদী পাড়ের হাজারও মানুষ। ঘুরে দাঁড়ানোর কোন পথও পান না অনেক সময়। বন্যা আর নদী ভাঙনে সবচেয়ে ক্ষতিগ্রস্ত হয় উত্তরের কয়েকটি জেলা। তাদের মধ্যে কুড়িগ্রাম অন্যতম।

উত্তরের জেলা কুড়িগ্রামে বন্যা পরিস্থিতির আরও অবনতি হয়েছে। ধরলা নদীর পানি সেতু পয়েন্টে বিপৎসীমার ২২ সেন্টিমিটার ও ব্রহ্মপুত্র নদের পানি চিলমারী পয়েন্টে বিপৎসীমার ২২ সেন্টিমিটার ওপর দিয়ে প্রবাহিত হচ্ছে। কাউনিয়া পয়েন্টে তিস্তার পানি ২৩ সেন্টিমিটার ও ব্রহ্মপুত্রের পানি নুনখাওয়া পয়েন্টে ৭ সেন্টিমিটার নিচ দিয়ে প্রবাহিত হচ্ছে। এতে জেলার ৯টি উপজেলার মধ্যে ২৫টি ইউনিয়নে লক্ষাধিক মানুষ পানিবন্দী হয়ে পড়েছে। বন্যার পানিতে প্লাবিত হয়েছে প্রায় শতাধিক চর।
কুড়িগ্রাম সদর উপজেলার যাত্রাপুর ইউনিয়নের পোড়ার চর গ্রামের চান মিয়া জানান, ঘরের ভেতরে বুক পর্যন্ত পানি উঠেছে। পার্শ্ববর্তী উঁচু জায়গা না থাকায় নৌকায় অবস্থান করছি। চুলা জ্বালাতে পারছি না। খুব কষ্টে পরিবার-পরিজন নিয়ে মানবেতর দিন পার করছি।

তিস্তার কিনারে ভাঙনের মুখে ঘুমাতে ভয় করে কি না, জিজ্ঞাসা করতেই একজন মহিলা বললেন, ‘নিন্দ কি আর আইসে বাহে? রাইত জাগি পাহারা দেওয়া নাগে।’ পাশেই আরেকটি ঘর। ওই পরিবারেরও সবকিছুই ভেঙে গেছে। একটিমাত্র ঘর আছে। জানলাম ওই একটিমাত্র ঘরে ১২–১৪ জন রাত যাপন করেন। ভাঙনের শিকার মানুষগুলোর মুখে গভীর বিষাদের ছায়া। তাঁদের দিকে তাকানো যায় না।

উলিপুর উপজেলার বেগমগঞ্জ ইউনিয়নের মশালের চরের হাসান আলী জানান বাজারের পাশেই অনেকগুলো বাড়ি নদীগর্ভে চলে গেছে। পূর্ণিমার সন্ধ্যায় লক্ষ্মী মাঝি জলের দিকে আঙুল নির্দেশ করে দেখাচ্ছিলেন কার বাড়ি কোথায় ছিল। কয়েকবার বাড়ি ভাঙার পর বাজারের পাশেই তিনি আশ্রয় নিয়েছিলেন। সেই বাড়িও নদীগর্ভে ভেঙে যাচ্ছে। একটিমাত্র ঘর আর বাকি আছে। ওই ঘরে পরিবারের সবাই মিলে ঘুমাবেন।

বাজারের শেষ মাথায় নদী চলে এসেছে। একটি চায়ের দোকানে বসি। চায়ের দোকানে বেশ কয়েকজন মানুষ টেলিভিশন দেখছিলেন। টেলিভিশনের শব্দ বন্ধ করা। বন্যা নিয়েই তাঁরা কথা বলছেন। দোকানি বললেন, ‘এই হাট সন্ধ্যার পর মানুষে ভরা থাকত। এলা আর মানুষ নাই। গত দুই–তিন বছরে কয়েক হাজার মানুষ এই এলাকা থাকি ভাঙনের শিকার হয়া অন্য এলাকাত চলি গেইছে।’ রফিকুল ইসলাম নামের একজন বয়স্ক ব্যক্তি বলছিলেন, ‘ভাঙনের এলায় কী হইছে। পানি যখন নামি যাইবে, তখন হইবে বড় ভাঙন।’ ভাঙন আর বন্যায় জনজীবন বিপর্যস্ত। তিস্তা-তীরবর্তী ভাঙনপ্রবণ এলাকার হাজার হাজার মানুষ তাদের ঘরবাড়ি সরাতে বাধ্য হচ্ছে। কিন্তু কোথায় নিয়ে যাবে বাড়িঘর, গরু-ছাগল-হাঁস-মুরগি, সেই ঠিকানা নেই। বসতবাড়ি পানিতে তলিয়ে থাকায় দেখা দিয়েছে শুকনো খাবার ও বিশুদ্ধ পনির সংকট। নিজেদের পাশাপাশি গবাদি পশুর খাদ্যের সংকট দেখা দেওয়ায় বিপাকে পড়েছেন তারা। বিশুদ্ধ পানি এবং শুকনো খাবারের চরম হাহাকার এখন বন্যাদুর্গত এলাকায়।

সড়কের যে অংশ পানির নিচে ডুবে যায়নি, তার দুপাশে ছোট ছোট প্লাস্টিকের ছাউনি তৈরি করা। এর কোনোটিতে গবাদিপশু, কোনোটিতে মানুষ রাত যাপন করছে। আমরা সংবাদমাধ্যমে যে ভয়াবহ দৃশ্য দেখি, তা খুবই সামান্য। পাকা সড়কে চলছে নৌকা। কলার ভেলায় করে গুরুত্বপূর্ণ মালামাল সরানো হচ্ছে। কেউ কেউ চৌকির ওপর চৌকি দিয়ে ঘরের ভেতরেই থাকছেন। কয়েক শ শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান বন্ধ করে দেওয়া হয়েছে। অসংখ্য পরিবারের অপরিহার্য জিনিসপত্র ভিজে নষ্ট হয়ে গেছে। শৌচাগার নেই।

কুড়িগ্রাম জেলায় চরের সংখ্যা পাঁচ শতাধিক। এসব চরে যে মানুষগুলো আছে, তাঁদের অবস্থা উপলব্ধি করা কঠিন। ৭৩ দশমিক ২ শতাংশ মানুষ এখানে গরিব। গত মৌসুমে যাঁরা ধান চাষ করেছিলেন, তাঁরা ধানের ন্যায্যমূল্য না পাওয়ায় তাঁদের হাতেও টাকা নেই। চলতি বন্যা তাঁদের আরও কাবু করে তুলবে। এবারের বন্যায় সব ফসল পানিতে ডুবে গেছে। যাঁরা মাছ চাষ করেছেন, তাঁদের পুকুরের মাছ এখন নদীতে। গবাদিপশুগুলোর খাদ্যের চরম সংকট দেখা দিয়েছে। এই সংকট চলবে অনেক দিন।

কুড়িগ্রামে বড়-মাঝারি-ছোট মিলে নদীর সংখ্যা প্রায় ৫০টি। এর মধ্যে আন্তসীমান্ত নদী ব্রহ্মপুত্র, তিস্তা, ধরলা, কালজানি, গদাধর, সংকোশ, গঙ্গাধর, জিঞ্জিরাম, হলহলিয়া, দুধকুমার, বারোমাসি, নীলকমল, ফুলকুমার, কালো, ধন্নী (ধরণী), তোরসা, গিরাই। এই বড় নদীগুলো ছাড়াও বর্ষায় ছোট নদীগুলোও অনেক বড় আকার ধারণ করে। প্রস্থে ব্রহ্মপুত্র ২০ কিলোমিটার, তিস্তা ১২ কিলোমিটার, ধরলা ৫ কিলোমিটার রূপ ধারণ করে। মাঝারি এবং ছোট নদীগুলো মিলে আরও প্রায় ১৫ কিলোমিটার প্রস্থে রূপ ধারণ করে। এ জেলায় বর্তমানে অর্ধশতাধিক কিলোমিটার প্রস্থে পানি প্রবাহিত হচ্ছে। এ বছরের বন্যা ভারত থেকে আন্তসীমান্ত নদী দিয়ে নেমে আসা পানিতে হয়েছে।

বন্যা এ বছরই যে প্রথম এমন হয়েছে তা নয়। প্রায় প্রতিবছর এ জেলায় বন্যা দেখা দেয়। এ বছর বেশি হয়েছে। সরকারিভাবে এই বন্যা প্রতিরোধের কোনো প্রকল্প গ্রহণ করা হয় না। প্রাকৃতিক দুর্যোগ বন্যা হবে। এর হাত থেকে শতভাগ রক্ষা পাওয়ার উপায় নেই। কিন্তু বন্যা কমিয়ে আনা সম্ভব। বর্তমানে কুড়িগ্রামে যে নদীগুলো আছে, সেই নদীগুলো ২০ বছর আগেও যে পরিমাণ পানি বহন করতে পারত, এখন আর তা পারে না। কারণ, নদীগুলোর গভীরতা কমেছে এবং সে কারণেই প্রস্থে বেড়েছে। কুড়িগ্রামের ৫০টি নদীর পাড়ে গিয়ে আমি স্থানীয়দের কাছে শুনেছি, নদী আগে অনেক গভীর ছিল।

এক বছরের বন্যা আর ভাঙনে কুড়িগ্রামে যে পরিমাণ সম্পদ নষ্ট হয়, তার চেয়ে অনেক কম বরাদ্দ দিয়ে যদি নদীর গভীরতা বৃদ্ধির উদ্যোগ নেওয়া যেত, তাহলে নদীপারের লাখ লাখ একর জমি আবাদি হয়ে উঠত এবং বন্যাও অনেক কমে আসত। নদীর পরিচর্যাই সারা দেশের বন্যা কমিয়ে আনতে পারে।

এই জেলার মানুষ চান নদীর প্রবাহ যাতে ঠিক হয়। যাতে তারা ভাঙন বা বন্যায় প্রতিবছর নিঃস্ব না হন।
বাংলাদেশের সবচেয়ে গরিব ১০টি উপজেলার ৯টি উপজেলাই হচ্ছে কুড়িগ্রামে। এর সব কটিতেই ভয়াবহ বন্যা দেখা দিয়েছে। পর্যাপ্ত আশ্রয়কেন্দ্র এবং খাদ্য ও চিকিৎসার বিশেষ ব্যবস্থা না থাকায় মানবেতর জীবন যাপন করতে হচ্ছে এসব অঞ্চলের মানুষকে। সরকারের পাশাপাশি দেশবাসীরও উচিত এসব অসহায় মানুষের পাশে দাঁড়ানো।