সোমবার থেকে পর্যায়ক্রমে আবাসিক হল খুলতে প্রস্তুত হাবিপ্রবি

  • 16 Oct
  • 08:21 PM

আব্দুল্লাহ আল মুবাশ্বির 16 Oct, 21

হাজী মোহাম্মদ দানেশ বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ের (হাবিপ্রবি) ৫৮তম একাডেমিক কাউন্সিলের সিদ্ধান্ত মোতাবেক বিশ্ববিদ্যালয়ের আবাসিক হলগুলো খুলছে আগামী ১৮ অক্টোবর (সোমবার) থেকে। তবে আবাসিক হলগুলো পর্যায়ক্রমে খোলা হবে বলে জানিয়েছে বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসন। এক্ষেত্রে হলে উঠতে হলে শিক্ষার্থীদের করোনার টিকা নিতে হবে।

বিশ্ববিদ্যালয়ের রেজিস্ট্রার অফিস থেকে জানা যায়, আগামী ১৮ অক্টোবর থেকে প্রথম দিকে ৩য়, ৪র্থ বর্ষ ও মাস্টার্সে অধ্যায়নরত শিক্ষার্থীরা হলে উঠতে পারবেন (শর্তসাপেক্ষে)। এরপর পর্যায়ক্রমে সকল আবাসিক শিক্ষার্থীদের হলে উঠানো হবে।

এদিকে বিশ্ববিদ্যালয়ের হল খোলার পূর্বে সকল প্রস্তুতি সম্পন্ন করেছে হল প্রশাসন।

ডরমেটরী-২ হলের হল সুপার অধ্যাপক ড. মো. গোলাম রব্বানী জানান, একাডেমিক কাউন্সিলের সিদ্ধান্ত মোতাবেক আগামী সোমবার থেকে পর্যায়ক্রমে হলগুলো খুলে দেওয়া হবে। তবে করোনা পরিস্থিতিতে মাননীয় উপাচার্য স্যারের নির্দেশে আবাসিক হলে আপাতত আমরা গণরুম রাখছি না। সেইসাথে যাদের ছাত্রত্ব নেই তারাও হলে অবস্থান করতে পারবে না। ডরমেটরী-২ হলে প্রবেশের ক্ষেত্রে প্রবেশমুখে হাত ধোয়ার ব্যবস্থা থাকবে। একসাথে ৮০ জন শিক্ষার্থী যেনো পড়াশোনা করতে পারে সেজন্য হলে একটি রিডিং রুমের ব্যবস্থা করা হয়েছে। এছাড়াও শিক্ষার্থীদের জন্য ডাইনিং এবং ক্যান্টিনের ব্যবস্থাও থাকবে।

বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান হলের হল সুপার সহযোগী অধ্যাপক ড. মো. হাসানুর রহমান জানিয়েছেন, করোনা পরিস্থিতি স্বাভাবিক হওয়ায় বিশ্ববিদ্যালয়ের ৫৮ তম একাডেমিক কাউন্সিলের সিদ্ধান্ত মোতাবেক আমাদের হল আগামী সোমবার থেকে খুলে দিতে যাচ্ছি। ঐ দিন হলের আবাসিক শিক্ষার্থীরা সকাল ৯ টা থেকে রাত ৯ টা পর্যন্ত হলে প্রবেশ করতে পারবে। তবে সেদিন শুধুমাত্র মাস্টার্স এবং চতুর্থ বর্ষের শিক্ষার্থীরাই হলে প্রবেশের সুযোগ পাবেন। এছাড়াও হলে প্রবেশের পূর্বে কমপক্ষে এক ডোজ টিকা নেওয়ার কার্ড প্রদর্শন করে তবেই শিক্ষার্থীদের হলে প্রবেশ করানো হবে বলে জানান অধ্যাপক ড. হাসানুর।

ফজিলাতুন্নেছা মুজিব হলের হল সুপার সহযোগী অধ্যাপক ড. মুহাম্মদ আবু সাঈদ জানান, হলের যে সংস্কার কাজের জন্য নির্দিষ্ট অর্থ বরাদ্দ দেওয়া হয়েছিলো সে অনুযায়ী আমার হলের বেশ কিছু সংস্কার কাজ করেছি। সংস্কার কাজের অংশ হিসেবে প্রত্যেকটি ওয়াশরুমে টাইলস করা হয়েছে,নতুন করে স্যানেটারী ফিটিংস লাগানো হয়েছে এবং প্রত্যেকটি রুমের চুনকামসহ রঙ করা হয়েছে। যেহেতু আমাদের হল আগামী ১৯ তারিখ থেকে খুলবে এজন্য কাজগুলো দ্রুত শেষ করার চেষ্টা চলছে।

শেখ রাসেল হলের হল সুপার সহযোগী অধ্যাপক ড. মো: রাশেদুল ইসলাম জানান, আমাদের শেখ রাসেল হল আগামী ২০ অক্টোবর থেকে খুলে দেওয়া হবে। হল খুলে দেবার পূর্ব প্রস্তুতির অংশ হিসেবে গুগল ডক ফরমের মাধ্যমে টিকা নেওয়া শিক্ষার্থীদের তথ্য নেওয়া হয়েছে। সরকারী অর্থায়নে এবং ইউজিসির নির্দেশনায় আমাদের মাননীয় উপাচার্য স্যারের তত্ত্বাবধানে হলের সংস্কার কাজগুলো ইতোমধ্যে সম্পন্ন হয়েছে। এছাড়াও শিক্ষার্থীদের হলে প্রবেশের সময় তাদের বরণ করে নিতে আমাদের কিছু পরিকল্পনা রয়েছে। আশা করি শিক্ষার্থীরা এবার হলে উঠলে নতুন কিছু দেখবে।