মেডিকেল শিক্ষার্থীদের অংশগ্রহণে সর্পদংশন বিষয়ক ব্যতিক্রমী বিতর্ক আয়োজিত

  • 21 Jan
  • 03:36 PM

রাহবার-ই-দ্বীন,শিক্ষার্থী, চট্রগ্রাম মেডিকেল কলেজ 21 Jan, 22

“সর্পদংশনের চিকিৎসায় ওঝা বর্জন নয়, প্রয়োজন সমন্বয়” শিরোনামে একটি ব্যতিক্রমী বিতর্কে অংশ নিয়েছেন ছয়টি ভিন্ন মেডিকেল কলেজের ছয়জন শিক্ষার্থী। বাংলাদেশের মেডিকেল শিক্ষার্থীদের এক্সট্রাকারিকুলার দক্ষতা বিকাশে সহায়ক স্বেচ্ছাসেবী সংগঠন আইএফএমএসএ বাংলাদেশ এর উদ্যোগে ২১ জানুয়ারি শুক্রবারে আয়োজিত “সর্পদংশনে ওঝাদের ভূমিকা: বিতর্ক ও আলোচনা” শীর্ষক এই অনলাইন অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন গণপ্রজাতন্ত্রী বাংলাদেশ সরকারের স্থানীয় সরকার বিভাগের সিনিয়র সচিব জনাব হেলালুদ্দীন আহমদ। উক্ত আয়োজনে সভাপতিত্ব করেন টক্সিকোলজি সোসাইটি অব বাংলাদেশের প্রেসিডেন্ট এবং স্বাস্থ্য অধিদফতরের সাবেক মহাপরিচালক প্রখ্যাত মেডিসিন বিশেষজ্ঞ চিকিৎসা-বিজ্ঞানী প্রফেসর মোহাম্মদ আবুল ফয়েজ। বিতর্কের বিচারক হিসেবে মূল্যবান মতামত ব্যক্ত করেন স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের অসংক্রামক রোগ নিয়ন্ত্রণ বিভাগের পরিচালক প্রফেসর মোহাম্মদ রোবেদ আমিন, চট্টগ্রাম মেডিকেল কলেজের অধ্যক্ষ প্রফেসর শাহেনা আক্তার, সেন্টার ফর ইঞ্জুরি প্রিভেনশন এন্ড রিসার্চ বাংলাদেশ এর এক্সিকিউটিভ ডিরেক্টর প্রফেসর একেএম ফজলুর রহমান। এছাড়া, বিশেষ অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন চট্টগ্রাম মেডিকেল কলেজের মেডিসিন বিভাগের প্রফেসর অনিরুদ্ধ ঘোষ। আয়োজনটিতে সার্বিক সহায়তায় ছিল টক্সিকোলজি সোসাইটি অব বাংলাদেশ এবং চট্টগ্রাম মেডিকেল কলেজের ভেনোম রিসার্চ সেন্টার। সঞ্চালনায় ছিলেন চট্টগ্রাম মেডিকেল কলেজের চতুর্থ বর্ষের শিক্ষার্থী রাহবার এবং আবরার।

প্রধান অতিথি সিনিয়র সচিব জনাব হেলালুদ্দীন আহমদ সর্পদংশনের চিকিৎসায় বাংলাদেশের আর্থসামাজিক অবস্থার প্রেক্ষিতে করণীয়, এক্ষেত্রে স্থানীয় সরকার বিভাগের ভূমিকা বিষয়ক বিভিন্ন দিক আলোকপাত করেন এবং সার্বিক সহযোগিতার আশ্বাস দেন।

সভাপতি প্রফেসর ফয়েজ বলেন, “বাংলাদেশে সর্পদংশন চিকিৎসা বিষয়ে সচেতনতা বৃদ্ধিতে মেডিকেল শিক্ষার্থীদের এমন আয়োজন সত্যিই প্রশংসনীয়।” সর্পদংশন চিকিৎসার যথাযথ বৈজ্ঞানিক প্রয়োগ, আপামর জনসাধারণ ও ওঝাদের সম্পৃক্তকরণ বিষয়েও তিনি নীতিনির্ধারকদের দৃষ্টি আকর্ষণ করেন।

দীর্ঘ ৪৫ মিনিটের উপভোগ্য বিতর্ক ও পক্ষে-বিপক্ষে যুক্তি-তর্ক উপস্থাপন শেষে বিতর্কটি শেষ হয়। বিজ্ঞ বিচারকবৃন্দ তাদের মতামত তুলে ধরেন এবং মেডিকেল শিক্ষার্থীদের এমন আয়োজনের প্রশংসা করেন।

আইএফএমএসএ বাংলাদেশের পক্ষ থেকে স্বাগত বক্তব্যে সংগঠনটির প্রেসিডেন্ট ডা: মুমতাহিনা ফাতিমা বলেন, “বাংলাদেশে এই প্রথমবার সর্পদংশন বিষয়ে মেডিকেল শিক্ষার্থীরা উন্মুক্তভাবে তাদের মতামত তুলে ধরেছে বিজ্ঞ বিচারকদের সামনে। এমন আয়োজনের সাথে যুক্ত হতে পেরে আমরা আনন্দিত”।

আইএফএমএসএ বাংলাদেশের ভাইস প্রেসিডেন্ট ইন্টারনাল অ্যাফেয়ার্স ডা: চৌধুরী তন্বী তরুণীমা বিল্লাহ্ বিসারীর সমাপনী বক্তব্যের মাধ্যমে আয়োজনটির সমাপ্তি হয়।