খিলগাঁও মডেল কলেজ ছাত্রলীগের সভাপতি সাধারণ সম্পাদকের বিরুদ্ধে যত অভিযোগ

  • 17 May
  • 04:07 PM

নিজস্ব প্রতিবেদক 17 May, 22

চুরি, স্বাক্ষর জাল, যৌন নিপীড়সহ নানা অভিযোগ খিলগাঁও মডেল কলেজ এন্ড বিশ্ববিদ্যালয় ছাত্রলীগের সভাপতি রাকিব হাসান ও সাধারণ সম্পাদক সুমন খানের বিরুদ্ধে।

জানা যায়, কলেজ সংসদে প্রকাশ্যে মদ্য পান করে মেয়েদের শালীনতা হানির চেষ্টা, ইভটিজিং সহ নানা অপকর্ম করে যাচ্ছে তারা। সভাপতি রাকিব হাসানের কুরুচিপূর্ণ প্রস্তাব ও নানা ভাবে হেনস্তাকারনে সমাজকর্ম বিভাগের তৃতীয় বর্ষের এক ছাত্রী কলেজে আসা বন্ধ করে দিয়েছে। করোনার সময় গরীব অসহায় শিক্ষার্থীদের বেতন ভাতা কমানোর সিদ্ধান্ত নেয় কলেজ কর্তৃপক্ষ।

এ সুযোগ কাজে লাগিয়ে ছাত্রলীগের এ দুই সভাপতি সাধারণ সম্পাদক ম্যানিজিং কমিটির সদস্য ও অধক্ষর স্বাক্ষর জাল করে। তারা টাকা কমানের জন্য শিক্ষার্থীদের কাছ থেকে টাকা আদায় করে। টাকা আদায়ের স্বীকারোক্তি মূলক একটি ভয়েজ রেকর্ড প্রতিবেদকের হাতে রয়েছে।

এ বিষয়ে অধ্যক্ষ মিহির রঞ্জন দে বলেন, আমি বিষয়টা শুনেছি। তবে কোন অভিযোগ আকারে পাইনি। আর স্বাক্ষর জালে বিষয়টি আমাদের আগের অধ্যক্ষ বলতে পারবেন। আমি তখন দায়িত্বে ছিলাম না।

এছাড়া কলেজের লিফটের মালামাল ও রড চুরির মত ঘটনাও ঘটায় সভাপতি রাকিব হাসান। এ বিষয়ে এস.এম. নওরোজ নামে ঠিকাদার প্রতিষ্ঠনটি রাকিব হাসানকে আসামী করে একটি মামলা দায়ের করে। বর্তমানে তারা ওই মামলার জামিনে রয়েছে।

এছাড়া কৌশলে বিয়ার ও সিগারেট ক্যামেরার ফ্রেমে রেখে গোপনে ছবি তুলে ছাত্রলীগ নেত্রীকে ফাঁসানোর অভিযোগ ওঠে সাধারণ সম্পাদক সুমন খানের বিরুদ্ধে। এ ঘটনায় ডিজিটাল নিরাপত্তা আইনে একটি মামলা করেছেন ছাত্রলীগের এক নেত্রী। সেই মামলাটিও এখনো চলমান রয়েছে।
এ দিকে ছাত্রলীগ সভাপতি সাধারণ সম্পাদকের বিরুদ্ধে প্রতিষ্ঠানটির শিক্ষার্থীদের যৌন হয়রানির ও ইভটিজিংয়ের একাদিক অভিযোগ রয়েছে। যৌন হয়রানির একাধিক ছবি ভিডিও সংরক্ষিত রয়েছে প্রতিবেদকের কাছে।

এ বিষয়ে নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক খিলগাঁও মডেল কলেজের ম্যানেজিং কমিটির সদস্য ও সাবেক সভাপতি বলেন, আমি ব্যক্তিগতভাবে দরিদ্র ও মেধাবী ছাত্রছাত্রীদের পাশে দাঁড়ানোর চেষ্টা করি। কয়েকজনের জন্য সুপারিশ করেছি। তবে তা সর্বচ্চো ৫০%। আমাদের কমিটির সদস্যদের স্বাক্ষর জাল করে শিক্ষার্থীদের ওপর দায় দিচ্ছে তাদের বের করে শাস্তির আওতায় আনা উচিত বলে আমি মনে করি।

তিনি আরো বলে আমি একাদিক বার বলেছি, তোমরা এসব কেন করছ ছাত্রলীগের বদনাম হচ্ছে, যে মেয়েরা তোমাদের ভরসা করবে এখন তারা তোমাদের ভয়ে কলেজে আসতে পারে না এটা ঠিক না।

এ বিষয়ে খিলগাঁও মডেল কলেজ এন্ড বিশ্ববিদ্যালয় ছাত্রলীগের সভাপতি রাকিব হাসান বলেন, ‘পারলে আপনি একটা নিউজ করে দেন আর কোন বক্তব্য নাই আমার।

এ বিষয়ে খিলগাঁও মডেল কলেজ এন্ড বিশ্ববিদ্যালয় ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক রাকিব হাসান বলেন, “আমাকে আমার মহানগর সভাপতিও এ বিষয়ে বলেছেন। কিন্তু আমার বিরুদ্ধে এমন কোন অভিযোগ নেই , আর সভাপতির (সুমনের) বিসয়টাতো আমি বলতে পারব না।

এ বিষয়ে ঢাকা মহানগর ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক জুবায়ের আহমেদ বলেন, আমি এমন কোন অভিযোগ পাইনি। তবে কোন অভিযোগ পেলে অবশ্যই সাংগঠনিক ব্যবস্থা নেব।

এ বিষয়ে ঢাকা মহানগর ছাত্রলীগের সভাপতি মেহেদী হাসান বলেন, ‘ছাত্রলীগ কখনই অন্যায়কে প্রশ্রয় দেয় নাই, আগামীতো দিবে না, যদি কেউ ছাত্রলীগের নাম ভাঙ্গিয়ে কোন অপরাধ করে সে ছাত্রলীগ করার অধিকার রাখে না। অভিযোগ প্রমাণিত হলে অবশ্যই ব্যবস্থা নিব।