চতুর্থ শিল্প বিপ্লবে নেতৃত্বের লক্ষ্যে বিশ্বমানের শিক্ষাব্যবস্থায় নিটার।

  • 04 Mar
  • 06:38 PM

রুবেল আকন্দ, নিটার প্রতিনিধি 04 Mar, 22

ঢাকার অদুরে সাভারে বাংলাদেশ সরকার ১৯৭৯ সালে টেক্সটাইল ইন্ডাস্ট্রির কর্মকর্তাদের কারিগরি প্রশিক্ষনের জন্য একটি ট্রেনিং সেন্টার প্রতিষ্ঠা করেন যার নাম দেয়া হয় "টেক্সটাইল ইন্ডাস্ট্রি ডেভেলপমেন্ট সেন্টার - টিআইডিসি" পরবর্তী তে ১৯৯৬ সালে নাম পরিবর্তন করে বস্ত্র মন্ত্রণালয়ের সরাসরি নিয়ন্ত্রণে "ন্যাশনাল ইনস্টিটিউট অফ টেক্সটাইল ট্রেনিং রিসার্চ এন্ড ডিজাইন - নিট্রেড" নামে প্রকল্প শুরু হয় যার মেয়াদকাল শেষ হয় ২০০৭ সালে।

২০০৮ সালে নতুনভাবে যাত্রা শুরু করে প্রতিষ্ঠান টি, বস্ত্র ও পাট মন্ত্রণালয়ের তত্বাবধানে বিটিএমএ এর সাথে চুক্তির মাধ্যমে পিপিপি এর অধিনে পরিচালিত হয়ে আসছে এই প্রতিষ্ঠানটি। ২০১৩ সালে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রস্তাবিত নামে "ন্যাশনাল ইনস্টিটিউট অফ টেক্সটাইল ইঞ্জিনিয়ারিং এন্ড রিসার্চ - নিটার" নামকরণ করা হয়।

টেক্সটাইল সেক্টরের উন্নতির সাধনে ২০১০-১১ শিক্ষাবর্ষে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাদানকল্প শিক্ষা ও গবেষণা ইনস্টিটিউট হিসেবে যাত্রা শুরু মাধ্যমে নতুন অধ্যায়ের সুচনা শুরু করে। চার (০৪) বছর মেয়াদি বি.এসসি ইন টেক্সটাইল ইঞ্জিনিয়ারিং ডিগ্রি চালু করে।

ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের অধিনে ২০১১ সালে মাত্র ৫০ জন শিক্ষার্থী নিয়ে যাত্রা করা নিটার বর্তমানে পাঁচটি ডিপার্টমেন্ট এর অধিনে ৬৮৫ জন শিক্ষার্থীর ভর্তির সুযোগ সৃষ্টি করেছে।

বি.এসসি ডিগ্রি চালুর মাত্র দশ (১০) বছরের ব্যবধানে প্রতিষ্ঠানটির এতো পরিবর্তন সাধনের মুলমন্ত্র হলো বিশ্বমানের শিক্ষাব্যবস্থা। নিটারের একাডেমিক কার্যক্রম পরিচালনার জন্য দেশ বিদেশের বিভিন্ন খ্যাতনামা বিশ্ববিদ্যালয় থেকে অধ্যায়নকৃত সর্বোচ্চ মেধাবী ৮৩ জন স্থায়ী শিক্ষক রয়েছেন।

নিটারে শিক্ষার্থীদের অধ্যায়নের জন্য রয়েছে মাল্টিমিডিয়া সমৃদ্ধ ডিজিটাল ক্লাসরুম ও সর্বাধুনিক প্রযুক্তির যন্ত্রপাতি সমৃদ্ধ ল্যাবরেটরি এবং শিক্ষার্থীদের সার্বক্ষনিক তথঢ প্রযুক্তির সাথে যুক্ত রাখার লক্ষ্যে সম্পুর্ণ ক্যাম্পাসে ফ্রি ওয়াইফাই এর ব্যবস্থা।

নিটারে রয়েছে 'স্টেট অফ দ্য আর্ট' মানের দেশের সর্ববৃহত ডিজাইন স্টুডিও এবং দক্ষিন এশিয়ার সর্ববৃহত ইযার্ণ ল্যাবরেটরি। সর্বাধুনিক প্রযুক্তি সমৃদ্ধ ডিপার্টমেন্ট এবং বিশ্বমানের শিক্ষাব্যবস্থার কারনে নিটার "সেন্টার অফ এক্সিলেন্স" নামেও পরিচিত।

শিক্ষার্থীদের অধ্যায়নের জন্য রয়েছে প্রায় ৪০ হাজার বই সমৃদ্ধ একটি আধুনিক ও ডিজিটাইজ লাইব্রেরী। গবেষণা কার্যক্রম পরিচালনার জন্য সেন্টার ফর রিসার্চ এন্ড ইন্ডাস্ট্রিয়াল রিলেশন (সিআরআইআর) যার মাধ্যমে ইন্ডাস্ট্রি সম্পর্কিত বিভিন্ন ফলিত, বিশেষায়িত ও মৌলিক গবেষণা কার্যক্রম করে থাকে।

নিটারের শিক্ষার্থীরা ইতিমধ্যে গবেষণার মাধ্যমে Pina Fibre - আনারসের তন্তু থেকে কাপড় তৈরির করতে সক্ষম হয়েছে। Banana Fibre - কলা গাছের আঁশ থেকে ফাইবার এক্সট্রাকশান করে টেক্সটাইল প্রডাক্ট তৈরি করেছে। Smart Textile, E-Textile নিয়ে গবেষণা শুরু করে প্রডাক্ট তৈরী করেছে নিটারের শিক্ষার্থীরা এছাড়াও সেন্টার ফর রিসার্চ এন্ড ইন্ডাস্ট্রিয়াল রিলেশন (সিআরআইআর) এবং নিটার সায়েন্স সোসাইটির ভিন্ন ভিন্ন উদ্যোগে বিভিন্ন রকম গবেষণা কার্যক্রম বর্তমানে চলমান রয়েছে।

দেশের অর্থনীতিকে শিল্পবান্ধব করে তোলার লক্ষ্যে বাংলাদেশ সরকারের টেক্সটাইল শিল্প হতে ৫০ বিলিয়ন মার্কিন ডলার আয়ের লক্ষ্যে নিটারের গ্র্যাজুয়েট'রা মাল্টিন্যাশনাল ইন্ডাস্ট্রিসহ বাংলাদেশের সুনামধন্য টপ লেভেলের প্রায় সব গুলো টেক্সটাইল/গার্মেন্টস ইন্ডাস্ট্রিতেই দক্ষতার সাথে কাজ করে চলেছে।