তারুণ্যের ভাবনায় পরিবেশ দিবস

  • 05 June
  • 02:57 PM

নিজস্ব প্রতিবেদক 05 June, 22

পরিবেশ আল্লাহ তালার এক বড় নিয়ামত৷কিন্তু নিয়ামতের যথেষ্ট ব্যবহার না করে এর অপব্যবহার করে বিশ্বে বাংলাদেশের ভাবমূর্তি প্রতিনিয়ত নষ্ট করে চলেছি৷ সম্প্রতি যুক্তরাষ্ট্রের পরিবেশবিষয়ক সংস্থা এনভায়রনমেন্টাল প্রটেকশন এজেন্সি (ইপিআই) গত বছর বিশ্বের ১৮০টি দেশের সরকারের পরিবেশ সুরক্ষায় ভূমিকা নিয়ে প্রতিবেদন প্রকাশ করে।সেখানে বাংলাদেশের অবস্থান ১৭৯৷এই প্রতিবেদনে বোঝাই যায় বর্তমান বাংলাদেশের জনগণ পরিবেশ নিয়ে কত সচেতন৷গত ১০ বছরে ৪০ধাপ অবনতি হয়ে বাংলাদেশের বর্তমান অবস্থা খুবই আশংকাজনক৷এই অবস্থা উতরিয়ে পরিবেশ রক্ষায় কি করণীয়,এবং তরুণদের পরিবেশ নিয়ে ভাবনা তুলে ধরেছেন ভার্সিটি ভয়েস।

''সভ্যতার বিকাশ এবং দূষণমুক্ত পরিবেশ একসাথে পাওয়া সম্ভব!?"
কারিমা আক্তার
উদ্ভিদবিজ্ঞান বিভাগ,বরিশাল বিশ্ববিদ্যালয়।
দাও ফিরে সে অরণ্য, লও এ নগর,/ লও যত লৌহ লোষ্ট্র কাষ্ঠ ও প্রস্তর/ হে নবসভ্যতা! হে নিষ্ঠুর সর্বগ্রাসী,/ দাও সেই তপোবন পুণ্যচ্ছায়ারাশি...।’বিশ্বকবির আক্ষেপ..।উন্নত হচ্ছে সভ্যতা ভারসাম্য হারাচ্ছে পরিবেশ।আমাদের পৃথিবী কি আমরা বাসযোগ্য করে তুলতে পারছি নতুন প্রজন্মের জন্য।
আজ ৫-ই জুন, ২০২২বিশ্ব পরিবেশ দিবস।এবারে দিবসটির প্রতিপাদ্য-লিভিং সাস্টেইনেইবিলিটি ইন হারমোনি উইথ নেচার।যার ভাবানুবাদ -"একটাই পৃথিবী, প্রকৃতির ঐকতানে টেকসই জীবন"৷
অক্সিজেন ছাড়া তিন মিনিটের বেশি মানুষ বাঁচতে পারে না।বেঁচে থাকার জন্য আমাদের প্রতিদিন বিশুদ্ধ অক্সিজেন প্রয়োজন ৫৫০ লিটার।২৪ ঘন্টা ব্যাবহার করতে পারে এমন অক্সিজেন সিলিন্ডারের মূল্য ৬৬০০০ টাকা।অথচ একটি পূর্নাঙ্গ গাছ অন্তত ১৮ জনের অক্সিজেন সরবারহ করে।পৃথিবীর ৭৫% অক্সিজেন আমরা পাই সামুদ্রিক শৈবাল ও উদ্ভিদ থেকে।প্রকৃতিই আমাদের বেঁচে থাকার সমস্ত রসদ জোগায়।আপনি যদি প্রকৃতিরানীর যত্ন করেন।প্রকৃতিরানীও আপনাকে শতরূপে মুগ্ধ করবে,নতুন দৃষ্টি জাগ্রত করে তুলবে,মনের আয়ু বাড়িয়ে দেবে কয়েক গুন।"যুদ্ধে -প্রানে প্রকৃতি প্রতিবেশ,আগামীর প্রজন্মের টেকসই বাংলাদেশ "এমনই প্রতিপাদ্য নির্ধারন করা হয়েছে বাংলাদেশে এবারের বৃক্ষরোপণ অভিযান কর্মসূচীর জন্য।আমাদের ছোট ছোট পদক্ষেপই একদিন বদলে দিবে হয়তো সমগ্র বিশ্বকে।তাই পরিবেশ রক্ষায় আমাদের আরও দায়িত্বশীল হওয়া উচিত।

"মরণশীল উন্নয়ন কাম্য নয় "
আবু তাহের
উদ্ভিদ বিজ্ঞান বিভাগ,বরিশাল বিশ্ববিদ্যালয়।
ইট,পাথর আর ক্রংক্রিটের বিশ্বে যান্ত্রিক উন্নয়ন সাধিত হলেও পরিবেশ বিপর্যয় ঘটছে সমানুপাতিক হারে। এর মূলে রয়েছে আমাদের অসুস্থ প্রতিযোগিতা। অসুস্থ প্রতিযোগিতা বলার একটাই কারণ হচ্ছে বহির্বিশ্বে যান্ত্রিক উন্নয়নের সাথে সাথে পরিবেশের উন্নয়ন লক্ষ করা যায়। কিন্তু আমাদের দেশে এর বিপরীত প্রতিচ্ছবি প্রকাশ পায়। একটি দেশের ভূখণ্ডের মোট আয়তনের ২৫ শতাংশ বনভূমি থাকা অপরিহার্য কিন্তু দূর্ভাগ্যবশত আমাদের দেশে এর পরিমাণ ১৫ শতাংশ প্রায়। কাটা পড়ছে শত কোটি গাছ। একই সাথে প্লাস্টিক বর্জ্য এবং জমিতে কীটনাশক ব্যবহারে হারিয়ে ফেলছি উর্বর জমি।
ফলাফল হিসেবে পরিবেশ থেকে যতটুকুই পাচ্ছি তার বেশির ভাগই বিষাক্ত। যানবাহনে পেট্রোল- ডিজেলের ব্যবহারে বাতাসে ক্ষতিকর পদার্থের পরিমাণ বেড়েই চলেছে। ঢাকা শহর আজ বিষাক্ততায় পরিপূর্ণ। গত কয়েক দশকে বাংলাদেশ বিশ্বের পরিবেশ বিপর্যয় ৪০ ধাপ নিচে অবতরণ করেছে। দেশ উন্নয়ন হবে, বিশ্ব আরও উন্নয়ন হবে তাতে কারো আপত্তি নেই তবে পরিবেশের বিপর্যয় করে মরণশীল উন্নয়ন কাম্য নয়।

"পাঠ্যবইএর পরিবেশ বিজ্ঞানের যথাযথ চর্চা হোক বাস্তব জীবনে"
নওরিন নুর তিষা
দর্শন বিভাগ,বরিশাল বিশ্ববিদ্যালয়।
জন্ম থেকে গর্ভধারিণী মায়ের বুকে বেড়ে উঠলেও আমাদের প্রকৃত স্থান মূলত প্রকৃতি মা। কিন্তু এই প্রকৃতি মায়ের প্রতিই আমাদের যতো অবহেলা,উদাসীনতা। আমরা ভুলেই যাই আমাদের চারপাশের পরিবেশের বাকশক্তি না থাকলেও তারও যত্নের প্রয়োজন। প্রয়োজন চর্চার। এ সম্পর্কিত বিভিন্ন জ্ঞান পাঠ্যপুস্তকের অন্তভূর্ক্ত করা হলেও তার প্রয়োগ শুধুমাত্র পরীক্ষার খাতা পর্যন্তই।বাস্তব জীবনে যার নেই কোনো অস্তিত্ব। আমরা সকলেই শ্রেণীকক্ষে পরিবেশ বিষয়ে সুশীল হলেও শ্রেণীকক্ষের বাইরের পরিবেশে হয়ে যাই ভিন্ন। আমরা পরিবেশ কে সংরক্ষণের পরিবর্তে হয়ে উঠি হুমকিস্বরূপ।
আমাদের সকলের উচিত শুধুমাত্র পাঠ্যবই থেকে পরিবেশ বিজ্ঞানের সংজ্ঞা ও পরিবেশ রক্ষার জ্ঞান মুখস্থ করে পরীক্ষার খাতায় সেটি উদগিরন করে বাস্তব জীবনে তার বিপরীত ভূমিকা পালন না করে পরিবেশের প্রতি আরো যত্নশীল হওয়া। প্রকৃতপক্ষেই তারা যেন প্রকৃতিপ্রেমী হিসেবে গড়ে ওঠে এবং শুধুমাত্র বিশেষ কোনো দিনে নয় সারা বছরই যেন পরিবেশ কে সংরক্ষনের প্রতি দায়িত্বশীল হয়। আমাদের সকলের চারপাশ হয়ে উঠুক সবুজ ও অন্তর হয়ে উঠুক শীতল।
"পরিবেশ রক্ষায় তরুণদের সচেতন হতে হবে"
হাসান রাব্বি
ইতিহাস ও সভ্যতা বিভাগ,বরিশাল বিশ্ববিদ্যালয়৷
গাছেরও তো প্রাণ আছে ভাই!
গাছের মতো নিঃস্বার্থ বন্ধু,
এই পৃথিবীর মাঝে নাই।
পরিবেশ বাঁচাতে বিনাস্বার্থে,
গাছ ছাড়া এই পৃথিবীর মাঝে,
সবুজ রঙে কে সাজবে ভাই?
মানুষ সৃষ্টির সেরা জীব। তাই মানুষের জ্ঞান-বুদ্ধি ও দায়িত্ব অন্য সকল প্রাণী থেকে বেশি। আর তরুণরা হলো সেই মানুষদের মধ্যে একটি উদীয়মান ভবিষ্যৎ। যাদের কর্ম, চিন্তা-চেতনা বর্তমান ও ভবিষ্যৎ নির্ধারণে যথেষ্ট ভূমিকা পালন করে। তাই পরিবেশ রক্ষায় তরুণদের দায়িত্ব অপরিসীম।
পরিবেশকে অনিবার্য ধ্বংসের হাত থেকে রক্ষার জন্য প্রতিটি মানুষের পাশাপাশি তরুণদেরও অগ্রণী ভূমিকা পালন করতে হবে। তাদের পরিবেশ রক্ষায় সচেতন হতে হবে।
এই বিষয়ে তরুণ সমাজকে খুবই সতর্কমূলক দৃষ্টি গ্রহণ করতে হবে। মোটকথা পরিবেশবান্ধব নীতি গ্রহণের পাশাপাশি সকল মানুষের পাশাপাশি তরুণ সমাজকেও সচেতন হতে হবে। বাস্তব কথা হলো তরুণ সমাজ পরিবেশ নিয়ে সচেতন না হলে, এই পরিবেশ রক্ষায় তাঁরা এগিয়ে না আসলে, এই পরিবেশ রক্ষায় তাঁরা ভূমিকা পালন না করলে পরিবর্তন সম্ভব না। তাই এই পৃথিবীকে ধ্বংসের হাত থেকে রক্ষার জন্য তরুণ সমাজকে অগ্রণী ভূমিকা পালন করতে হবে। কারন পরিবেশ বাঁচলে পৃথিবী বাঁচবে আর পৃথিবী বাঁচলে আমরা ও আমাদের ভবিষ্যৎ প্রজন্ম বাঁচবে।

"একটাই পৃথিবী,একতাই পৃথিবী"
ফারহানা আফসার মৌরী
ভূতত্ত্ব ও খনিবিদ্যা, বরিশাল বিশ্ববিদ্যালয়।
বিশ্ব পরিবেশ দিবস প্রতিবছর ৫ জুন। এর অর্থ এইদিনেই আগামীর পরিবেশ কতটা সুন্দর স্বাস্থ্যকর করে তোলা যায় তারই সংকল্প গ্রহণ করা হয়। শুধু সারাবছরই নয়, দীর্ঘ কয়েক বছর ধরে চলে এই কর্মসূচী বাস্তবায়নের কার্য।
এবারের পরিবেশ দিবসের মূল থিমঃ "Only one Earth" কারণ পরিবেশ আর পৃথিবী একে অপরের সাথে ওতপ্রোতভাবে জড়িত। পরিবেশকে অসুস্থ রেখে মানুষ কখনোই সুস্থ থাকতে পারবে না। তাই আমাদের নিজেদের কথা চিন্তা করে হলেও পরিবেশকে ভালোবাসা উচিৎ। অবৈধ গাছপালা কাটা থেকে বিরত থাকা, অসতর্ক হয়ে গ্যাস,বিদ্যুৎ ব্যবহার করা থেকে বিরত থাকা,নিয়মিত গাছপালা লাগানো ইত্যাদি কাজে সবাইকে উদ্বুদ্ধ করা উচিৎ।
বিশ্ব পরিবেশ দিবসের কর্মসূচীর মধ্যে রয়েছে- জাতীয় বৃক্ষরোপন অভিযান। পরিবেশকে বাঁচানোর জন্য সংকল্প গ্রহণে সারা পৃথিবীর সকল দেশই সামিল হয়েছে। আসুন আমরাও সামিল হই বিশ্ব পরিবেশ দিবসের এই কর্মযজ্ঞে। বলি- একটাই পৃথিবী,একতাই পৃথিবী।

"পরিবেশের সৌন্দর্য বহাল রাখতে পেরেছি কি?"
রিপন কুমার সাহা
মার্কেটিং বিভাগ,বরিশাল বিশ্ববিদ্যালয়৷
৫ জুন পালিত হয় ‘বিশ্ব পরিবেশ দিবস’। পরিবেশ ও জীববৈচিত্র্য সংরক্ষণ, পরিবেশ দূষণ নিয়ন্ত্রণ এবং পরিবেশগত মান উন্নয়নে বিশ্বব্যাপী রাজনৈতিক কর্মোদ্যোগ আর জনসচেতনতার লক্ষ্যে পালন করা হয় দিবসটি।
প্রকৃতির থেকেই সৃষ্টি হয় পরিবেশ। প্রকৃতি তার সাধ্যমত সবটুকুই আমাদের কল্যাণে বিলিয়ে দিয়েছেন। প্রকৃতি আমাদের পরিবেশ দিয়েছে ঠিকই, কিন্ত সেই সুন্দর প্রাকৃতিক পরিবেশ আজও কি ততটাই সুন্দর রয়েছে? নাকি দিনের পর দিন, সেই সুন্দর প্রাকৃতিক পরিবেশ নষ্ট হয়ে যাচ্ছে, বিলীন হয়ে যাচ্ছে অগোচরে?
প্রকৃতি ও পরিবেশ আজ সংকটের মুখোমুখি। প্রাকৃতিক ও মানবসৃষ্ট বিভিন্ন কর্মকাণ্ডের ফলে বিপন্ন পরিবেশ। মানুষের বসবাস উপযোগী বিশ্ব গড়ার লক্ষ্যে চাই দূষণমুক্ত পরিবেশ।
বিশ্বের সবচেয়ে দূষিত বায়ুর দেশের তালিকায় ভারত ও চীনের পরেই বাংলাদেশের অবস্থান। অন্যদিকে, বড় শহরগুলোর মধ্যে দূষণের দিক দিয়ে বিশ্বে রাজধানী ঢাকার অবস্থান তৃতীয়। বায়ুদূষণের কারণে বিশ্বে প্রতি বছর ৫৫ লাখের বেশি মানুষ মারা যায়।
আমি মনে করি, এই পরিস্থিতিতে জনগনকে পরিবেশ রক্ষায় উৎসাহিত করতে সরকারকে কার্যকর ভূমিকা রাখতে হবে। মানুষ চাইলেই এই পরিবেশ কে রক্ষা করা সম্ভব, হোক সেটা নিজের জন্য অথবা অন্য কারো জন্য।