ছাত্রলীগের হামলায় আহত ছাত্র ইউনিয়নের সম্পাদক

  • 04 Jan
  • 07:49 PM

আতিকুর রহমান, বাকৃবি প্রতিনিধি 04 Jan, 22

বাংলাদেশ কৃষি বিশ্ববিদ্যালয়ের (বাকৃবি) ঈশা খাঁ হলে শাখা ছাত্র ইউনিয়নের সাধারণ সম্পাদক অনন্য ঈদ-ই-আমিনের উপর শাখা ছাত্রলীগের সাবেক ৩ নেতার হামলার অভিযোগ উঠেছে। শীতবস্ত্র বিতরণ অনুষ্ঠানকে কেন্দ্র করে সোমবার এই হামলা সংগঠিত হয়েছে বলে শাখা ছাত্র ইউনিয়নের এক প্রেস বিজ্ঞপ্তিতে অভিযোগ করা হয়।

প্রেস বিজ্ঞপ্তিতে জানানো হয়, বিশ্ববিদ্যালয়ের ঈশা খাঁ হলে শীতবস্ত্র বিতরণকে কেন্দ্র বাংলাদেশ ছাত্র ইউনিয়ন বাকৃবি শাখার সাধারণ সম্পাদক অনন্য ঈদ-ই-আমিনের উপর হামলা করে হলের ছাত্রলীগের নেতারা। হামলায় অংশগ্রহণকারীরা হলেন সদ্য বিলুপ্ত হল ছাত্রলীগ কমিটির যুগ্ম সম্পাদক জোবায়ের হিমেল ও মাহামুদুল হাসান মুরাদ, এবং দপ্তর সম্পাদক নাঈম আহমেদ সরকার। হামলায় আহত হয়ে অনন্য ঈদ-ই-আমিন ময়মনসিংহের পপুলার হাসপাতালে চিকিৎসা নেন। ঈশা খাঁ হল প্রভোস্টের প্রত্যক্ষ মদদে হলের ছাত্রলীগের নেতারা এই হামলা করে। বিজ্ঞপ্তিতে ছাত্র ইউনিয়নের নেতারা এই হামলার সুষ্ঠু বিচার এবং হল প্রভোস্টের পদত্যাগের দাবি জানান।

এ বিষয়ে অভিযুক্ত ঈশা খাঁ হল ছাত্রলীগের সাবেক যুগ্ম সম্পাদক জোবায়ের হিমেল বলেন, ছাত্র ইউনিয়নের নেতাকর্মীরা হলে শীতবস্ত্র বিতরণ কর্মসূচীর অনুষ্ঠান সম্পন্ন করার জন্য হলের কর্মচারীদের চাপ প্রয়োগ করছিল। এ বিষয়ে কথা বলতে গেলে ছাত্র ইউনিয়নের নেতাদের সঙ্গে আমাদের হাতাহাতি হয়। তবে পরে হলের প্রভোস্ট এসে বিষয়টি মিমাংসা করে দেন।

ঈশা খাঁ হল ছাত্রলীগের আরেক যুগ্ম সম্পাদক মাহামুদুল হাসান মুরাদের সাথে ফোনে যোগাযোগ করা হলে তিনি হামলার বিষয়টি অস্বীকার করেন। অন্যদিকে নাঈম আহমেদ সরকারের সাথে মুঠোফোনে যোগাযোগের চেষ্টা করা হলে সংযোগ স্থাপন করা সম্ভব হয়নি।

এদিকে সোমবার সন্ধ্যায় হামলার ঘটনায় বিক্ষোভ মিছিল করেছে শাখা ছাত্র ইউনিয়ন ও বাকৃবি সমাজতান্ত্রিক ছাত্র ফ্রন্ট।

এ বিষয়ে হলের প্রভোস্ট অধ্যাপক ড. মো. আশরাফুল হক বলেন, অসুস্থ থাকায় শীতবস্ত্র বিতরণ অনুষ্ঠানে আমি উপস্থিত থাকতে পারি নি। তবে অনাকাক্সিক্ষত ঘটনাটি জানতে পারলে আমি ওই আবস্থাতেই দ্রুত ঘটনাস্থলে গিয়ে বিষয়টি মিমাংসা করে দেই। আমি হলের গার্ডিয়ান হিসেবেই দায়িত্ব পালনের চেষ্টা করেছি। আমি কখনই চাই না আমার হলে এমন অনাকাক্সিক্ষত ঘটনা ঘটুক। তবে হামলায় প্রত্যক্ষ মদদের বিষয়ে আমার বিরুদ্ধে যে অভিযোগ করা হয়েছে তা গ্রহণযোগ্য নয়।

এ বিষয়ে বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রক্টর অধ্যাপক ড. মুহাম্মদ মহির উদ্দীন বলেন, এমন ঘটনা কখনই কাম্য নয়। শিক্ষক হিসেবে কেউই চায় না ক্যাম্পাসে কোথাও কোনো অপ্রীতিকর ঘটনা ঘটুক। বিষয়টা দুই পক্ষের মধ্যে সমাধান করে দেওয়া হয়েছে।