গুচ্ছ ভর্তি পরীক্ষার ফল চ্যালেঞ্জের সুযোগ

  • 05 Aug
  • 07:40 PM

ছামিয়া আক্তার, জবি প্রতিনিধি 05 Aug, 22

গুচ্ছভুক্ত দেশের ২২টি বিশ্ববিদ্যালয়ের ২০২১-২২ শিক্ষাবর্ষের বিজ্ঞান ‘এ' ইউনিটের সমন্বিত ভর্তি পরীক্ষার ফলাফল প্রকাশ করা হয়েছে। দ্বিতীয়বারের মতো অনুষ্ঠিত হওয়া এ ভর্তি পরীক্ষার ফলাফলে কোন রূপ অসঙ্গতি লক্ষ্য করলে চ্যালেঞ্জ করতে পারবে বলে জানিয়েছেন কেন্দ্রীয় গুচ্ছ ভর্তি কমিটি।

পরীক্ষার্থীদের দুই হাজার টাকা ফি দিয়ে ফল পুননিরীক্ষণের জন্য আবেদন করতে হবে। আগামী ২০ আগস্ট বাণিজ্য অনুষদভুক্ত ‘সি’ ইউনিটের পরীক্ষা শেষে শিক্ষার্থীদের সংশ্লিষ্ট ইউনিটের ফল চ্যালেঞ্জের সুযোগ দেওয়া হবে।

গুচ্ছ ভর্তি কমিটির যুগ্ম আহবায়ক ও জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য অধ্যাপক ড. মো. ইমদাদুল হক শুক্রবার এ তথ্য জানিয়েছেন।

উপাচার্য ড. ইমদাদুল হক বলেন, শিক্ষার্থীরা যদি মনে করে তাদের ফলাফলে অসঙ্গতি রয়েছে, সেক্ষেত্রে তারা ফল চ্যালেঞ্জের সুযোগ পাবে। তবে গুচ্ছ ভর্তি পরীক্ষা শেষ হলে অর্থাৎ আগামী ২০ আগস্ট বাণিজ্য অনুষদের পরীক্ষা শেষে ফল চ্যালেঞ্জের সময়সীমা নির্ধারণ করে দেওয়া হবে। তবে এ ক্ষেত্রে প্রতি শিক্ষার্থীকে দুই হাজার টাকা ফি দিয়ে আবেদন করতে হবে।

জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য আরও বলেন, চ্যালেঞ্জ করার পর কোন শিক্ষার্থীর ফল পরিবর্তন হলে সে আবেদন ফি অর্থাৎ দুই হাজার টাকা ফেরত পাবে। আর পরিবর্তন না হলে সব একই থাকবে। শিক্ষার্থীদের সার্বিক সুবিধা বিবেচনায় এই সুযোগ দেওয়া হবে।

দেশের ২২টি সাধারণ এবং বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ে অনুষ্ঠিত বিজ্ঞান অনুষদভুক্ত ‘ক’ ইউনিটের ফলাফল প্রকাশ করা হয়েছে। শিক্ষার্থীরা তাদের ফলে কোন রূপ অসঙ্গতি লক্ষ্য করলে এবারও চ্যালেঞ্জ করতে পারবে। তবে সে ক্ষেত্রে দুই হাজার টাকা ফি দিয়ে আবেদন করতে হবে। আগামী ২০ আগস্ট বাণিজ্য অনুষদ ভুক্ত ‘সি’ ইউনিটের পরীক্ষা শেষে শিক্ষার্থীদের সংশ্লিষ্ট ইউনিটের ফল চ্যালেঞ্জের সুযোগ দেওয়া হবে।

এর আগে বৃহস্পতিবার গুচ্ছভুক্ত দেশের ২২টি বিশ্ববিদ্যালয়ের ২০২১-২২ শিক্ষাবর্ষের বিজ্ঞান ‘এ' ইউনিটের সমন্বিত ভর্তি পরীক্ষার ফলাফল প্রকাশ করা হয়। এবারের ভর্তি পরীক্ষায় সর্বমোট পাশের হার ৫৫.৬৩ শতাংশ। সংশ্লিষ্ট ওয়েবাসাইটে ফলাফল প্রকাশ করা হয়েছে। শিক্ষার্থীরা আইডি ও পাসওয়ার্ড দিয়ে লগইন করে ফলাফল দেখতে পারবেন।

'এ' ইউনিটে সর্বোচ্চ নম্বর ৮৭.৫০ এবং সর্বনিম্ন মাইনাস (-) ২০। দুজন শিক্ষার্থী যুগ্মভাবে প্রথম স্থান অধিকার করেছেন। তারা হলেন সুমাইয়া রহমান যার রোল ১৬১৯০৩ ও কেন্দ্র ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় এবং সুমাইয়া বিনতে মাসুদ যার রোল ১৭৮৯৭৭ ও তার কেন্দ্র ছিলো খুলনা বিশ্ববিদ্যালয়। এই ইউনিটে মোট পরীক্ষার্থী আবেদন করেন ১ লাখ ৬১ হাজার ৭৬৭ জন। এর মধ্যে পরীক্ষায় অংশগ্রহণ করেন ১ লাখ ৫৩ হাজার ৮৪৪ জন যা মোট আবেদনকারীর ৯৫.১০ শতাংশ। এছাড়াও অনুপস্থিত ছিলেন ৭৩২৩ জন অর্থাৎ ৪.৯০ শতাংশ।

ভর্তি পরীক্ষায় পাশ করেছেন ৮৫ হাজার ৫৮২ জন। যা পরীক্ষায় অংশগ্রহণকারীর ৫৫.৬৩ শতাংশ। এছাড়াও অকৃতকার্য হয়েছেন ৬৬ হাজার ৭১১ জন। অর্থাৎ পরীক্ষার্থীদের ৪৩.৩৭ শতাংশ। অকৃতকার্য সকলেই ৩০ এর কম নম্বর পেয়েছেন। এদিকে ১ হাজার ৫৫১ জন পরীক্ষার্থীর খাতা বাতিল হয়েছ। যা মোট পরীক্ষার্থীর ১ শতাংশ৷ এদের মধ্যে ৩ জন পরীক্ষার্থীকে বহিষ্কার, রোল নম্বর ভুল লিখায় ২৯ জনের খাতা বাতিল ও সেট নম্বর ভুল লিখায় ১৫১৯ জনের খাতা মূল্যায়ন করা হয়নি।

'এ' ইউনিটের ভর্তি পরীক্ষায় ৮০ ও এর উপরে পেয়েছেন ৫০ জন, ৭০ ও এর উপরে পেয়েছেন ১৬২১ জন, ৬০ ও এর উপরে পেয়েছেন ১০৩৪৬ জন, ৫০ ও এর উপরে পেয়েছেন ২৯২২২ জন, ৪০ ও এর উপরে পেয়েছেন ৫৪৯৭৩ এবং ৩০ ও এর উপরে পেয়ছেন ৮৫৫৮২ জন।

দেশের ২২টি পাবলিক এবং বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ের গুচ্ছ ভর্তি পরীক্ষার ‘এ’ ইউনিটের ভর্তি পরীক্ষা শনিবার অনুষ্ঠিত হয়। ১৯ টি কেন্দ্র ও কেন্দ্রগুলো উপকেন্দ্রে একযোগে ভর্তি পরীক্ষা নেয়া হয়েছে।

গুচ্ছভুক্ত ২২টি বিশ্ববিদ্যালয়ে আগামী ১৩ আগস্ট মানবিক অনুষদভুক্ত 'বি' ইউনিট এবং ২০ আগস্ট বাণিজ্য অনুষদভুক্ত 'সি' ইউনিটের পরীক্ষার মধ্য দিয়ে দ্বিতীয়বারের মত আয়োজিত গুচ্ছ ভর্তি পরীক্ষা শেষ হবে।